Category Archives: ইভেন্ট আপডেট

আমাদের নববর্ষ ১৪২৩ উৎযাপনের কথা!

Bangla New Year 1423

১৪২৩ সালের পহেলা বৈশাখে বৃহস্পতিবার সকাল বেলা চন্দ্রিমা উদ্যানে সাজসাজ রব। উচ্ছাসের জোয়ার ছড়িয়ে পড়ছে চতুর্দিকে। তবে কি পথশিশুরা বঞ্চিত হবে এই উৎসব থেকে? না তা হতেই পারে না। উচ্ছ্বাস, আনন্দ, আর খুশির ছোঁয়া ছড়িয়ে পড়েছিল পথশিশুদের মাঝেও। চন্দ্রিমা উদ্যানে জিয়াউর রহমানের মাজারের পশ্চিম পাশে বৃক্ষের নিচে ছায়াময় পরিবশে শুরু হয় এই উৎযাপন উৎসব। আশেপাশে রোদ থাকলেও বৃক্ষের ছায়ায় শান্তি, শীতল আর বৈশাখের বাতাসে হৃদয়ে জুড়িয়ে আসে, এতো চমৎকার পরিবেশ।

প্রার্থনার পর সকালের নাস্তা দিয়েই শুরু হয়েছিল পহেলা বৈশাখ উৎযাপনের প্রথম মুহুর্ত। তারপর শিশুরা নববর্ষের ঐতিহ্যমূলক ছবি আকাঁ থেকে শুরু করে ম্যাচ দিয়ে তৈরী বিভিন্ন দ্রব্য এবং ছবি রঙে মেতে উঠলো। শুধু কি আঁকলেই হবে? অঙ্কিত ছবিগুলো কেটে স্বেচ্ছাসেবীদের সহায়তায় আস্ত চারটা দেয়ালিকা তৈরী করে তবেই ক্ষান্ত হলো এই পর্ব। তারপর মহাসমারোহে বালিশ খেলায় আয়োজন করা হয়। শিশুদের সে কি উচ্ছ্বাস! আর আনন্দ! যেন চন্দ্রিমা উদ্যানে অসংখ্য ছোট পরী আর ফেরেশতাদের আসর বসে ছিলো। আনন্দের এই ঢেউ ছড়িয়ে পড়েছিল আশাপাশের মানুষজনের কাছেও। প্রতিযোগিতামূলক এই খেলায় তিনজনকে পুরস্কারও প্রদান করা হয়।

তারপর ঘূর্ণি তৈরী করার পদ্ধতি শেখানো হয়। স্বেচ্ছাসেবীদের সহায়তায় সব শিশুদের জন্য একটি ঘূর্ণি তৈরী করা হয়।
ঘূর্ণিগুলো যখন ফুরফুরে বাতাসের স্পর্শে ঘুরছিলো সে কি মনোমুগ্ধকর দৃশ্য। প্রাণ জুড়িয়ে আসে। তারপর শিশুদের গান, কবিতা আবৃত্তি, ছড়া নিয়ে এক মনোমুগ্বকর পর্বের সূচনা হয়। তারপর শুরু হয় দুপুরের খাবারের প্রস্তুতি। আবারো দেশ, জাতি, অসহায় ও বঞ্চিত মানুষদের কল্যাণ কামনা করে প্রার্থনা দিয়ে খাবারের সূচনা হয়। তারপর রেলী দিয়ে শেষ করা হয় পহেলাবৈশাখ উদযাপন অনুষ্ঠান।

BNY1423-2

নববর্ষে আমাদের প্রত্যাশা পথশিশু মুক্ত বাংলাদেশ রচনা। যেখানে সহনশীলতা, ভালোবাসা, সম্প্রীতি, আদর, স্নেহ ছড়িয়ে দিয়ে ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে একটি সুন্দর আগামী গড়ে তোলা হবে। আমরা আরো বেশী সেবা এবং ভালোবাসা ছড়িয়ে দিতে চাই। ঐ যে নববর্ষের প্রভাতের সূর্যের রক্তিম আভা গড়িয়ে পড়ছে। সুতরাং এখনই ভালোবাসা, সম্প্রীতি, সহনশীলতা, সহিষ্ণুতা, একতা, মানবতাবোধের বীজ বপনের প্রকৃত সময়। তবে আর দেরী কেন? আপনিও ভালোবাসার এই স্রোতে শামিল হোন।

ধন্যবাদ সবাইকে।

ধন্যবাদ জ্ঞাপন অনুষ্ঠান

গ্রীণ হেরাল্ড স্কুলে শুক্রবার বিকেল থেকেই কেমন যেন আনন্দময় পরিবেশ বিরাজ করছে। গেট দিয়ে প্রবেশ করলেই লাল গোলাপ ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হচ্ছে সবাইকে। ব্যাপারটা কি?
ঘটনা হলো পথশিশু সেবা সংগঠন এবং স্বেচ্ছাসেবীদের স্বজন, সুহৃদদের, শুভাকাঙ্খীদের নিয়ে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিলো। যাদের আন্তরিক সহযোগিতা, সমর্থন ও পৃষ্ঠপোষকতায় আমরা পথশিশুদের মধ্যে ভালোবাসা ছড়িয়ে দিয়ে তাদের ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে সহযোগিতা করতে পারছি।

thanku1

একটি সমবেত সংগীত দিয়েই অনুষ্ঠানের সূচনা হয়েছিলো। তবে নতুন এবং পুরাতন স্বেচ্ছাসেবীদের সহযোগিতায় অজস্র মোমের প্রজ্বলন দিকবিদিক মোহমায়া ছড়িয়ে দিচ্ছিল যেন।
তারপর চার ধর্মের চারজন প্রতিনিধি সেবা সম্পর্কে তাদের ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ ব্যাখ্যা করেন।
তারপর একে একে এই সংগঠনের ইতিহাস, পরিচিত এবং স্লাইড শো এর মাধ্যমে আমাদের অর্জন এবং আমাদের সহযোগিতায় পথশিশুদের নিজেদের প্রতিষ্ঠার কিছু গল্প তুলে ধরা হয়, আমাদের বিভিন্ন শিশুরা শেল্টার হোমে রয়েছে তারা এখন কেমন আছে এইরকম শিশুদের অভিমত নেয়া হয়।
এদিকে ফাঁকে ফাঁকে চা, বিস্কিট, কফি চানাচুর তো চলছেই।
তারপর নতুন, পুরাতন স্বেচ্ছাসেবীদের মধ্যে পরিচয় ও শুভেচ্ছা বিনিময় হয়।

P1040382 - 2

এইবার আমাদের সংগঠনের ও তার সুহৃদদের অনেকের অনুভূতি প্রকাশের সুযোগ দেয়া হয়। প্রায় প্রতিটি ব্যক্তব্য ছিলো স্বেচ্ছাসেবীদের জন্য শিহরণমূলক।
তারা পথশিশুদের সহযোগিতা করেই তো অনেক অনেক খুশি। একজন সুহৃদ তো আবেগের বশে কেঁদেই দিলেন।

সন্ধ্যায় সকলের জন্য একটি চমৎকার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিলো। সমবেত সংগীত, একক সংগীত, কবিতা আবৃত্তি, নৃত্য এবং ছোট্ট নাটক দিয়ে সাজানো হয়েছিলো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। করতালি আর উল্লাসে মেতে সকলেই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানকে উপভোগ্য করে তুলেছিলো।
তারপর সকলের জন্য খাবারের আয়োজন করা হয়েছিলো।
এভাবেই শেষ হয় ভালোবাসার মিলনমেলার। সবাই যখন অনুষ্ঠান ছেড়ে চলে যাচ্ছিল তখন অনেকেই হয়তো অনুভব করেছিলো তাদের ভিতরে নতুন শক্তির উত্থান হচ্ছে। ভালোবাসার শক্তির কিংবা সেবা ছড়িয়ে দেওয়ার শক্তির।
কেউ কেউ পারস্পরিক ভালোবাসা আর সহযোগিতার বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে পথশিশুদের সুন্দর ভবিষ্যৎ নির্মাণের দীপ্ত শপথ নিচ্ছে।
আরো বেশী ভালোবাসা ও সহযোগিতা আমরা পথশিশুদের সেবায় ছড়িয়ে দিতে চাই। আপনিও আমাদের সাথেই থাকুন।​

পথশিশুসেবা সংগঠন এবার পহেলা বৈশাখ পালন করব শিশুদের সাথে….

শুভ দিন। আশা করি সবাই ভালো আছেন। সবাই কে পহেলা বৈশাখ এর অগ্রিম শুভেচ্ছা।
এই শুভেচ্ছার সাথে আরো জানাচ্ছি যে আমরা পথশিশুসেবা সংগঠন এবার পহেলা বৈশাখ পালন করব শিশুদের সাথে….
কি আনন্দ তাই না….. সেদিন অনেক মজা হবে।
তাই আপনারা যারা অংশগ্রহন করতে চান আমাদের সাথে যোগাযোগ করবেন।
অনুষ্ঠান হবে চন্দ্রিমা উদ্যান, ১৪ এপ্রিল, সময় সকাল ১০টা।
1400293_651915678162494_1941283543_o

এই নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারেন (সাদিয়া – ০১৬৮৬৫৯১৯৬৮) ধন্যবাদ।

“স্বপ্নের স্কুল” কথা টা শুনতে অনেক ভালো লাগে তাই না …

“স্বপ্নের স্কুল” কথা টা শুনতে অনেক ভালো লাগে তাই না ,
ছবি দিলাম দেখেন এই সেই স্বপ্নের স্কুল।
আমাদের নিউ মার্কেট এর শিশুরা তাদের স্বপ্নের স্কুল বানালো।
তাদের স্বপ্ন তাদের স্কুল টা কেমন হবে?
সুন্দর একটা দোতলা ঘর থাকবে ,সাথে থাকবে একটা বড় মাঠ,আরো থাকবে আকা বাকা রাস্তা ,অনেক গাছপালা আরো কত কিছু ,,,
তাদের স্বপ্ন তারা ওই স্কুল এ লেখাপড়া করবে,খেলাদুলা করবে ।
তাই সেদিন তারা একে একে করে কাগজ কেটে রং করে স্কুল,মাঠ,গাছপালা,রাস্তা বানালো তারপর আঠা দিয়ে বড় একটা কাগজে আটকে দিল।
আর সাথে আছে আমাদের সেচ্ছাসেবক বন্ধুরা যারা সাহায্য করলো ওই স্কুল বানাতে।
আশা করি সবার ভালো লাগবে।

1939684_721002534587141_10870737313391000_o

পথশিশুসেবা সংগঠন।

আজ কি সুন্দর একটা দিন ছিল ৪/৪/২০১৪

10620794_787253544628706_3679619001481445720_n

আশা করি সবাই ভালো আছেন।

আজ কি সুন্দর একটা দিন ছিল ৪/৪/২০১৪।  আর কোনো দিন ফিরে পাব না…
অনেক দিন পর প্রায় সব সেচ্ছাসেবক এক সাথে হলাম মিটিং এ। সময়টা আসলে ভালো কাটলো।
প্রত্যেক ফিল্ড এর লিডার,ভাইস-লিডার , ও সেচ্ছাসেবক তাদের ফিল্ড ,কাজ ,পরিস্থিতি ,পরিবেশ এবং যাদের কে নিয়ে আমাদের কাজ অর্থাৎ আমাদের শিশুদের বিষয় আলোচনা করা হয়.
সবার চিন্তা ভাবনা কিভাবে এই শিশুদের আরো ভালো সেবা দেওয়া যায়।
আচ্ছা একটা কথা কি চিন্তা করা যাই কেন শিশুদের নাম হলো পথশিশু?
আমরা তো আমাদের ঘরের শিশুদের কখনো ওই নাম ডাকি না,
হাসজ্জল শিশু ,ঘুমন্ত শিশু,কিন্তু খেলা করছে শিশু,কিনবা আমার শিশু বলি,,
ওই নামে ডাকি না,
আমাদের শপথ যে আমরা একদিন ওই নাম মুছে ফেলবো। .
জানিনা কবে আসবে সেই দিন,এখনো আমরা অপেক্ষা করছি নতুন একটা পৃথিবী গড়ব বলে ।
আলো আসবেই।
আসুন আমরা সেই শিশুদের পাশে দাড়াই , যারা আপনার ভালবাসার জন্য প্রতীক্ষায় আছে।

সবার জন্য শুভ কামনা।

পথশিশুসেবা সংগঠন.
০৪/০৪/২০১৪