Category Archives: পথ ফিরে পাওয়া কজন

একজন তসলিমা

আমি তামিম এর মা তাসলিমা । আমি ও তামিম বর্তমানে শিশুপল্লী প্লাসে থাকি । আমরা এক সময় গ্রামে থাকতাম । তামিমের বয়স যখন চার বছর, তখন তার বাবা আমাদের ফেলে চলে যায় । তারপর অসহায় অবস্হায় ছেলেকে নিয়ে জীবিকার তাগিদে ঢাকায় চলে আসি । প্রথমে বাসা বাড়িতে কাজ করতাম । একদিন গাবতলীর এক পানি ব্যবসায়ী আমাকে পানি সরবরাহের কাজ দেয় । তখন থেকে আমি গাবতলী বাস স্ট্যান্ড এলাকায় পানি সরবরাহের কাজ করতাম, আর রাতে সেখানেই ঘুমাতাম । আমার ছেলে তামিম পথশিশু সেবা সংগঠনের ভাই-বোনদের সাথে পড়াশুনা, খেলাধূলা করত এবং ছবি আঁকত । একদিন লুসিও ভাই আমার ছেলে সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য আমাকে ও আমার ছেলেকে শিশুপল্লী প্লাসে থাকার কথা বলেন । সুস্হ সুন্দর জীবনের মানে প্রথমে বুঝতে না পেরে এবং বিশ্বাস না বরে তার কথা অবজ্ঞা করি । কিন্ত্ত হঠাৎ একদিন আমার ছেলে খুবই অসুস্হ হয়ে পড়লে, পথশিশু সেবা সংগঠনের ভাই-বোনদের আন্তরিক সাহায্যে সে সুস্হ হয়ে উঠে । এবং তাদের এই নিঃস্বার্থ ভালোবাসায় আমার মন পরিবর্তন হয়, এবং তাদের কথায় শিশুপল্লী প্লাসে যেতে রাজি হয়ে যাই । প্রায় তিন বছরেরও বেশী সময় ধরে শিশুপল্লী প্লাসে আছি । এখানে আমি হাতে কাজ শিখছি ও পাশাপাশি কিছু সঞ্চয়ও করছি । এই সঞ্চয় দিয়ে আমি একটি ব্যবসা শুরু করতে যাচ্ছি । আমার ছেলে দ্বিতীয় শ্রেণীতে পড়াশুনা করছে । আমি এখন ভবিষ্যতের আলো দেখছি । সবাই আমার ছেলে জন্য দোয়া করবেন ।

 

আসলাম হোসেন জয়

joy

আমি মো: আসলাম হোসেন জয় । আমার বাবা মো: জসিম উদ্দিন (মৃত) । আমি আমার বাবা-মায়ের সাথে এক সময় কুড়িল বিশ্বরোডে একটি বস্তিতে থাকতাম । কুড়িল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩য় শ্রেণী পর্যন্ত পড়েছিলাম । আমার বয়স যখন নয়, তখন আমার বাবা মারা যায় । আমার মায়ের পক্ষে বাসা ভাড়া দেওয়া সম্ভব ছিল না, তাই আমরা ফার্মগেট পার্কে থাকতে শুরু করলাম । মা বাসা বাড়িতে কাজ করত, আর আমি পত্রিকা বিক্রি করতাম । এভাবে দুটি বছর কেটে গেল । ফার্মগেট পার্কে থাকাকালীন সময় পথ শিশু সেবা সংগঠনের ভাইয়া আপুদের সাথে বিভিন্ন পড়াশুনা খেলাধূলা করতাম, ছবি আঁকতাম । একদিন ব্রাদার লুসিও আমাকে সুন্দর জীবনের জন্য সাভারে একটি সেবা শ্রমে থাকার কথা বলেন । আমি রাজি হওয়ায় তারা আমার মায়ের অনুমোতি নিলেন । এখন আমি চতুর্থ শ্রেণীতে পড়ি । আমার রোল দুই (২) । আমি বড় হয়ে ডাক্তার হতে চাই, যেন গরীব রোগীদের চিকিৎসা করতে পারি, আর আমার মায়ের জন্য সুন্দর একটি থাকার জায়গার ব্যবস্হা করতে পারি ।

সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন ।